Logo
 বর্ষ ১১ সংখ্যা ৩০ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৫ ১৭ জানুয়ারী, ২০১৯ 
প্রচ্ছদ কাহিনী/প্রতিবেদন
এই সময়/রাজনীতি
ডায়রি/ধারাবাহিক
স্বাস্থ্য
খেলা
প্রতিবেদন
সাহিত্য সংস্কৃতি
বিশ্লেষন
সাক্ষাৎকার
প্রবাসে
দেশজুড়ে
অনুষ্ঠান
ফিচার ও অন্যান্য
নিয়মিত বিভাগ
দেশের বাইরে
প্রতিবেদন
 
http://sadiatec.com/
‘সে অনুভূতি বলে বোঝানো সম্ভব না’ -মাহবুবা ইসলাম রাখি  

ভুবন বিজয়ী হাসি আর প্রতিভার নিখুঁত উপস্থাপনায় লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার এ বছরের মুকুট জিতে নিয়েছেন মাহবুবা ইসলাম রাখি। প্রতিযোগিতার সীমানা পেরিয়ে আগামী দিনের তারকা হবার স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা শুরু করেছেন মিডিয়াতে। সাপ্তাহিকের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় সঙ্গী হয়েছেন শামীমা মিতু

দুই ভাইবোনের মধ্যে সবচেয়ে ছোট রাখি বেশ গোছাল স্বভাবের  মেয়ে। নিয়মের বাইরে যেতে চান না একটুও। অত্যন্ত সহজ-সরল মেয়েটির কাছে কোনো কিছুই জটিল বলে মনে হয় না। ছোটবেলা থেকেই শান্ত স্বভাবের এই মেয়েটির মডেলিং এবং অভিনয়ের প্রতি ছিল অন্যরকম ভালো লাগা।  সেই স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে নিজের যোগ্যতার শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণে সামিল হন লাক্স চ্যানেল আই সুন্দরী প্রতিযোগিতায়। যার ফলস্বরূপ আজকের এই তারকা রাখির জন্ম।
লাক্স সুন্দরী প্রতিযোগিতার আসরে মুকুট পরার মুহূর্তটি আজীবন তার সবচেয়ে স্মরণীয় স্মৃতি হয়ে থাকবে বলেই রাখির ধারণা। তার ভাষ্যমতে, ‘যখন বিজয়ী হিসেবে নিজের নামটি ঘোষিত হয়, সে সময়ের অনুভূতি বলে বোঝানো সম্ভব নয়। আনন্দ মেশানো, বিস্ময়ঘেরা এক রোমাঞ্চকর অনুভূতি সেটা। আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম যে বিজয়ী হবো। তবে বাস্তবে হতে পেরে আমার বিশ্বাসই হচ্ছিল না।
মিডিয়া অঙ্গনে এখন নিজের পাকাপোক্ত আসন গড়তে ব্যস্ত নবীনতম এই লাক্স সুন্দরী। ইতোমধ্যেই অভিনয়ের মাধ্যমে ভক্তদের যথেষ্ট প্রশংসাও কুড়িয়েছেন তিনি। রাখির ছোট পর্দা অভিষেক হয়েছে  ‘বিস্ময়’ নাটকে। বিপাশা হায়াতের রচনা আর তৌকির আহমেদের পরিচালনায় নাটকটি প্রচারিত হয়েছে  চ্যানেল আইতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে। এ নাটকে অভিনয় প্রসঙ্গে রাখি বলেন, এই নাটকে তৌকির আহমেদও অভিনয় করেছেন। আমি অনেক ভাগ্যবান যে আমার জীবনের প্রথম নাটক এমন দুজন মানুষের স্বান্নিধ্য পেয়েছি। ছোটবেলা থেকেই তৌকির আহমেদের অভিনয় দেখে এসেছি। আর তিনি এবারের লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতার বিচারকও ছিলেন। তার নাটকে কাজ করতে পেরে অনেক ভালো লেগেছে। অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। আর বিপাশা আপু তো আমাদের আদর্শ।
প্রথম নাটকের স্মৃতি মনে করে রাখি বলেন, প্রথম নাটকে কাজ করতে গিয়ে তৌকির আহমেদের অনেক সহযোগিতা পেয়েছি। আমাকে অনেক বেশি মোটিভেট করেছেন। আসলে অভিনয় যে কি তা ওনাদের কাছ থেকেই শিখেছি। প্রথম নাকটে কাজ করতে গিয়ে স্মরণীয় ঘটনার কথা বলতে গিয়ে হাস্যোজ্জ্বল এই তারকা জানান, ঘটনাটি অনেক মজার। আমাকে অভিনয় করতে হয়েছিল কান্নার দৃশ্যে। কিন্তু মজার ব্যাপার আমার কান্না আসছিল না। চোখে কয়েকবার গ্লিসারিন দেবার পরও চোখ জ্বালা করছিল কিন্তু কান্না আসছিল না। এরপর  চোখে সরাসরি পানির ড্রপ দিয়ে কান্না আনতে হয়েছিল।
এরপর অভিনয় করেন রায়হান খানের পরিচালনায় টেলিছবি আত্মসাৎ-এ। বাবা ও তার দুই মেয়েকে ঘিরেই এর গল্প। মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট নিয়ে বর্তমান সময়কে তুলে ধরা হয়েছে এ নাটকে। দুই মেয়ের একজন নিসু। এই চরিত্রেই অভিনয় করেছেন রাখি। এ প্রসঙ্গে রাখি বলেন, এই টেলিফিল্মে আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার মেয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছি। এ ধরনের চরিত্রে এটাই আমার প্রথম কাজ। এই কাজটি করতে গিয়ে কিছুটা হলেও মুক্তিযুদ্ধের মতো গৌরবোজ্জ্বল বিষয়টি অনুধাবনের চেষ্টা করেছি। এ ধরনের চরিত্রে অভিনয় করাটা আমার জীবনের অনেক বড় পাওয়া। চ্যানেল আইতে প্রচারিত হবার পর অনেক প্রশংসা পেয়েছি সবার। 
নাটক ছাড়া মডেলিং নিয়েও ভীষণ ব্যস্ত  সময় কাটাচ্ছেন তিনি। এর মধ্যে বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচারিত এলিট পেইন্টের বিজ্ঞাপনে নজর কেড়েছেন সবার। কাজ করতে যাচ্ছেন অমিতাভ রেজার পরিচালনায় সিলন চায়ের বিজ্ঞাপনচিত্রে। এত কাজের ভিড়ে পরিবার ও বন্ধুদের আদরের রাখি কি পারেন আগের মতো সময় বের করে নিতে? এ ধরনের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ব্যক্তি জীবনে অবসর এখন খুব কমই পাই। যতোটুকু অবসর পাই, তা পড়াশোনার পেছনেই ব্যয় হয়ে যায়। আমি ব্রিটিশ কাউন্সিল থেকে ‘এ’ লেভেল করছি। সামনেই আমার চূড়ান্ত পর্বের পরীক্ষা। ফলে পড়াশোনাকেই এখন বেশি প্রাধান্য দিচ্ছি। লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার’ প্রতিযোগিতায় থাকার কারণে লেখাপড়া একটু পিছিয়ে দিয়েছিলাম। তবে এখন আবারও পুরোদমে পড়াশোনা করছি। তবে মিডিয়া অঙ্গনের জীবন খুবই উপভোগ করছি।’  
  সেরার সুন্দরীর মুকুট বিজয়ী রাখি লাক্সের উপহার হিসেবে পেয়েছেন এক বছরমেয়াদি আন্তর্জাতিক শিক্ষাবৃত্তি ও ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত একটি ছবিতে মুখ্য নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করার সুবর্ণ সুযোগ। তাই খুব শিগগিরই অভিষেক হতে যাচ্ছে বড় পর্দাতেও। এ প্রসঙ্গে রাখি বলেন, আসলে আমি একজন সুঅভিনেত্রী হতে চাই এটাই আমার প্রথম ইচ্ছা। তারপর পরিস্থিতি বলে দেবে কোন পথে এগোব। তবে বাণিজ্যিক ধারার ছবিতে নয়, অভিনয় করতে চাই একটু ভিন্ন ধারার ছবিতে। পাশাপাশি মডেল হিসাবেও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই।
  লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় কেবল সুন্দর মুখের জয়, তা নয়, সুন্দর মানুষটির গুণেরও চর্চা আর উত্তরোত্তর উন্নতির সুযোগও মেলে এখানে। এমনটাই মনে করেন রাখি। তিনি বলেন, ‘প্রতিযোগিতা চলাকালে অভিনয়, নৃত্য, আবৃত্তিসহ আরও বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ছিল। প্রশিক্ষকরা সবাইকে প্রয়োজন অনুসারে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। নিজের প্রতিভা বা মেধার দিকটি শাণিয়ে নেবার সব সুযোগই পেয়েছি সেখানে। আমাদের গ্রুমিং সেশনগুলো নিজেকে সুন্দরভাবে প্রকাশে আমাদের আত্মবিশ্বাস শতগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রধানত এই প্লাটফর্ম থেকে আমার যে আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়েছে  তা আমার পরবর্তী চলার পথে বড় ধরনের সহায়ক হবে।

Bookmark and Share প্রিন্ট প্রিভিও | পিছনে 
ফিচার ও অন্যান্য
  • খেলার মাঠ থেকে রাজনীতিতে আলোচিত যারা...
  • [অভিমত] জনমুখী বইমেলা জরুরি
  • গ্রামের বিবর্তন -আতাউর রহমান মারুফ
  •  মতামত সমূহ
    পিছনে 
     আপনার মতামত লিখুন
    English বাংলা
    নাম:
    ই-মেইল:
    মন্তব্য :

    Please enter the text shown in the image.
    বর্তমান সংথ্যা
    পুরানো সংথ্যা
    Click to see Archive
    Doshdik
     
     
     
    Home | About Us | Advertisement | Feedback | Contact Us | Archive