Logo
 বর্ষ ১১ সংখ্যা ২১ ১৯শে কার্তিক, ১৪২৫ ১৫ নভেম্বর, ২০১৮ 
প্রচ্ছদ কাহিনী/প্রতিবেদন
এই সময়/রাজনীতি
ডায়রি/ধারাবাহিক
স্বাস্থ্য
খেলা
প্রতিবেদন
সাহিত্য সংস্কৃতি
বিশ্লেষন
সাক্ষাৎকার
প্রবাসে
দেশজুড়ে
অনুষ্ঠান
ফিচার ও অন্যান্য
নিয়মিত বিভাগ
দেশের বাইরে
প্রতিবেদন
 
http://sadiatec.com/
জিম্বাবুয়ে সিরিজ : ক্রিকেটারদের ইনজুরি -মোয়াজ্জেম হোসেন রাসেল  
মাঠের ক্রিকেটে আবারও দুর্দান্ত সময় কাটছে বাংলাদেশের। আগে দেশের মাটিতে দুটি এশিয়া কাপের ফাইনালে খেললেও এবার প্রথমবারের মতো দেশের বাইরে শিরোপা লড়াইয়ের ম্যাচে অংশ নিয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। কিন্তু জয়ের খুব কাছ থেকে ফিরতে হয়েছে। ২২২ রান করে শেষ বল পর্যন্ত লড়াই করে হেরে যায় ভারতের কাছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই ও আবুধাবিতে এবারের এশিয়া কাপের আসরটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। বলার মতো অনেক অর্জন নিয়ে দেশে ফিরলেও সবচেয়ে বেশি দুশ্চিন্তার নাম ’ইনজুরি’। ক্রিকেটাররা এখন রীতিমতো যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন। সিনিয়র ক্রিকেটারদের মধ্যে মাশরাফি বিন মর্তুজা, তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম চোটের সঙ্গে লড়াই করছেন। সিনিয়রদের মধ্যে কেবল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদই পুরোপুরি সুস্থ রয়েছেন। চলতি মাসেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। সেখানে প্রতিপক্ষ নিয়ে চিন্তা করার চেয়ে নিজেদের সুস্থতা নিয়েই বেশি ভাবতে হচ্ছে। বলা যায় একটা অস্থির সময় কাটাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। হাতের ইনজুরিতে এশিয়া কাপে এক ম্যাচ খেলেই দেশে ফিরেছিলেন ওপেনার তামিম ইকবাল। সাকিবও খেলতে পারেননি শেষ অবধি। ইনজুরি নিয়ে খেলেছেন মুশফিকুর রহিম। আর এশিয়া কাপ থেকে ইনজুরি নিয়ে ফিরেছেন ওয়ানডে দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা। সামনেই ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে সিরিজ। চলতি মাসের ২১ তারিখ থেকে শুরু হওয়া ওই সিরিজে মাশরাফি খেলতে পারবেন কিনা সেটা নিয়েই এখন দেখা দিয়েছে সংশয়। তবে বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী জানিয়েছেন, ‘সাধারণত হাত ও পায়ের মচকে যাওয়া ইনজুরি ঠিক হতে কমপক্ষে দুই থেকে তিন সপ্তাহ লাগে। মাশরাফির হাতে যে ব্যান্ডেজটা আছে, সেটি দুই সপ্তাহ পর খোলা হবে। তখন সত্যিকার অবস্থা বোঝা যাবে। তবে সাধারণত এসব ইনজুরি ভালো হতে ২১ দিনের মতো সময় লাগে। তবে কারোরটা একটু আগেই সেরে যায়’। এশিয়া কাপের বাঁচা-মরার লড়াইয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে রুবেলের বলে শোয়েব মালিকের উড়ন্ত ক্যাচ নিয়েছিলেন মাশরাফি। সে সময়ই ডান হাতের কনিষ্ঠ আঙুলে ব্যথা পান মাশরাফি। পরে হাতে ব্যান্ডেজ নিয়ে মাঠে নেমেছিলেন। ফিল্ডিং করতে গিয়ে পুনরায় চোট পান পায়ে। সেসব ইনজুরি নিয়েই ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে খেলেছিলেন ওয়ানডে অধিনায়ক। এরপর দেশে ফিরে এক্স-রে করালে জানা যায়, মাশরাফির ডান হাতের কনিষ্ঠ আঙুল ভেঙে গেছে। পাশাপাশি তার ডান পায়ের উরুর মাংসপেশিতেও চোট রয়েছে। উরুর ইনজুরির ব্যাপারে জানা গেছে, সেটা গুরুতর কিছু নয়। বিশ্রাম পেলে দুই সপ্তাহের মধ্যে এটা ভালো হয়ে যায়। মাশরাফি যেহেতু এখন পুরোপুরি বিশ্রামে, তাই উরুর ইনজুরি কোনো সমস্যা তৈরি করবে না।’ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাশরাফি প্রথম ম্যাচ থেকেই খেলতে পারবেন কিনা সেটাই দেখার বিষয়। এদিকে ইনজুরিতে থাকা সাকিব গত ৫ অক্টোবর চিকিৎসার জন্য অস্ট্রেলিয়া গেছেন। তবে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের হাতের অস্ত্রোপচার করানো হবে আরও এক মাস পর। সে হিসেবে বলা যায় সাকিবকে কয়েক মাস পাচ্ছে না বাংলাদেশ। আগামী ২১ অক্টোবর থেকে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টাইগারদের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু হবে। এ সিরিজ সামনে রেখে চোট জর্জরিত বাংলাদেশ দল। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজকে সামনে রেখে আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অনুশীলন শুরু হবে। জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশে এসে বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে। ২১ অক্টোবর প্রথম ওয়ানডে দিয়ে শুরু হবে দুই দলের সিরিজ। ১৬ অক্টোবর জিম্বাবুয়ে দল বাংলাদেশে পা রাখবে। একদিন আগে থেকে প্রস্তুতি শুরু হবে মাশরাফিদের। এশিয়া কাপের ফাইনালে জিততে না পারলেও বলা যায়, যে লক্ষ্য নিয়ে দেশ ছেড়েছিল টাইগাররা সেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে পেরেছে। ফাইনালেও শক্তিশালী ভারতকে টেনে নিয়েছিল শেষ বল পর্যন্ত। ফাইনাল ম্যাচ শেষ করে পরেরদিনই আবার দেশে ফিরতে হয়েছে মাশরাফিদের। ফেরার ভ্রমণক্লান্তি পাশাপাশি আবুধাবি থেকে দুবাইয়ের লম্বা পথের কষ্টও ছিল। সঙ্গে ছিল প্রায় ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ছয়টা ম্যাচ খেলার চাপ। এসব ভুলে এবার নেমে পড়তে হবে জিম্বাবুয়ে সিরিজের প্রস্তুতিতে। এই সিরিজে আছে তিন ওয়ানডে ও দুটি টেস্ট ম্যাচ। এরপরই আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টেস্টের শেষ দিনেই ঢাকায় পা রাখবে ক্যারিবীয়রা। কাছাকাছি সময়ে আয়োজিত দুই সিরিজের জন্যই প্রস্তুতিটা একটু বিলম্বে শুরু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। এর আগে বিশ্রামে থাকবেন এশিয়া কাপ খেলা বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার। জাতীয় লিগে খেলছেন বাকিরা। দলের ৬ দিনের এই অনুশীলন ক্যাম্প চলবে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত। আগামী বছরের মে মাসে আয়ারল্যান্ড সিরিজ এবং তারপরই বিশ্বকাপ খেলবে বাংলাদেশ। এতগুলো ম্যাচের আগে ক্রিকেটারদের বিশ্রাম খুব জরুরি। তাই দীর্ঘ বিশ্রাম পাচ্ছেন ক্রিকেটাররা। তৃতীয়বারের মতো এশিয়া কাপে রানার্সআপ হয়ে গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। সে হিসেবে জিম্বাবুয়ের সঙ্গে সিরিজের আগে ১৬ দিনের বিশ্রাম পাচ্ছেন মাশরাফিরা। এরপর জিম্বাবুয়ে সিরিজ দিয়ে শুরু হবে তাদের ব্যস্ততম মৌসুম। বাংলাদেশে পৌঁছে ১৯ অক্টোবর বিকেএসপিতে একদিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচে অংশ নেবে দু’দল। এরপর ২১ অক্টোবর মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে স্বাগতিক ও সফরকারীরা। সিরিজের শেষ দুটি ওয়ানডে গড়াবে ২৪ ও ২৬ অক্টোবর চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। প্রতিটি ওয়ানডে ম্যাচই দিবা-রাত্রির। এরপর ৩-৭ নভেম্বর সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গড়াবে প্রথম টেস্ট ম্যাচ। ছায়া সুনিবিড় নয়নাভিরাম এ স্টেডিয়ামটি এই ম্যাচ দিয়েই টেস্ট অভিষেক হবে। দ্বিতীয় ও শেষটি অনুষ্ঠিত হবে ১১-১৫ নভেম্বর মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে। এদিকে জিম্বাবুয়ে সিরিজে অনিশ্চিত মাশরাফির খেলা। এ অবস্থার মধ্যেই আবার নতুন খবর বেরিয়েছে অস্ত্রোপচার করতে হবে মাশরাফির পায়ে! ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ইনজুরির সঙ্গে সখ্যতা গড়ে ওঠায় মোট সাতবার অপারেশনের টেবিলে যেতে হয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ওয়ানডে দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। একটু খেয়াল করলে দেখা যাবে বোলিং মার্কে যাওয়ার সময় তিনি কিছুটা নিচু হয়ে হাঁটুতে পরিয়ে দেয়া ’নি ক্যাপ’ টেনে তোলেন। এরপর দৌড় শুরু করেন। মাশরাফির ক্ষতবিক্ষত সেই পায়ে নাকি আবারও অস্ত্রোপচার করতে হতে পারে। তবে বিষয়টি এখনই নিশ্চিত করে বলতে পারেননি বিসিবি চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী। দ্বিতীয় দফায় পায়ের স্ক্যান শেষে তবেই তিনি নিশ্চিত হবেন কোন পথে আগাতে হবে। এই চিকিৎসক জানান, ‘এশিয়া কাপের সময় একটা বল সরাসরি ওর পায়ে আঘাত লেগেছিল। এতে উরুতে রক্ত জমে যায়। স্ক্যান করে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে এটা রক্ত জমাট বেঁধে তৈরি হয়েছে। তবু এটা আমরা সুনিশ্চিত হওয়ার জন্য কালকে আরও একটা স্ক্যান করব। যা আমাদের কনফার্ম করবে যে, এটা জমাট বাঁধা রক্ত নাকি অন্য কিছু। যদি জমাট বাঁধা রক্ত না হয়, তাহলে দুটি উপায়ে এগোনো যেতে পারে। একটি হলো একটু রক্ষণশীল উপায়। এতে সাধারণত দুই-তিন সপ্তাহের মধ্যে শরীরই এটা শুষে নেয়। সেটা না হলে অস্ত্রোপচার করে সরিয়ে ফেলতে হয়। কিন্তু সেটা খুবই বিরল ব্যাপার।’ শুধু উরুতেই কেন? পাকিস্তানের বিপক্ষে অঘোষিত সেমিফাইনালে উড়ে গিয়ে শোয়েব মালিককে তালুবন্দী করার পর সবাই দেখেছেন মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে ডান হাতে কনিষ্ঠ আঙ্গুলে ব্যান্ডেজ জড়িয়ে আবার নেমেছেন। সেই চোটও কম গুরুতর নয়। তিন সপ্তাহ তাকে মাঠের বাইরে ছিটকে দিয়েছে। পাশাপাশি আছে থাই ইনজুরিও। এদিকে চোট সমস্যা থাকলেও তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানকে নিয়ে এশিয়া কাপ শুরু করেছিল বাংলাদেশ দল। উদ্বোধনী ম্যাচের আগে পুরনো পাঁজরের ব্যথা মাথাচাড়া দিলেও খেলেছেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু সেই এশিয়া কাপই কাল হয়ে দাঁড়ায় সাকিব-তামিমের জন্য। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচে বাম হাতের কব্জিতে বল লেগে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যান তামিম। আঙ্গুলের চোট নিয়ে খেলা চালিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত খেলা হয়নি সাকিবের। সুপার ফোরের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের আগে হঠাৎ করে আঙ্গুল ফুলে যাওয়ায় বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডারকেও টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিতে হয়। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, অন্তত তিন মাসের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হচ্ছে সাকিবকে। তামিমের সুস্থ হতে সময় লাগবে প্রায় দুই মাস। এদিকে পাঁজরের ইনজুরি নিয়ে এশিয়া কাপ খেলা মুশফিক চার থেকে ছয় সপ্তাহ পর্যন্ত বিশ্রামে থাকলে সুস্থ হয়ে উঠবেন এমনটা আশা বিসিবি চিকিৎসকের। তবে পাঁজরের ইনজুরি হওয়ায় সপ্তাহখানেক বেশি সময় লাগতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তবে সেটা নিশ্চিত হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও এক সপ্তাহ। জানা গেছে, মুশফিকের পাঁজরে চিড় আছে, ট্রমা আছে। যে কোনো ধরনের হাড়েই আসলে যদি চিড় থাকে, তাহলে চার থেকে ছয় সপ্তাহ লাগে সুস্থ হতে। কিন্তু পাঁজরের ব্যাপারটা আলাদা। কারণ পাঁজরে কোনো বিশ্রাম থাকে না, সবসময় নড়াচড়ার মধ্যে থাকে। পাঁজরের ইনজুরিতে তাই সময় বেশি লাগে। ধারণা করছি সপ্তাহখানেক বেশি সময় লাগতে পারে। আপাতত তাকে বিশ্রামে রাখা হয়েছে। এদিকে আঙ্গুলের চোট নিয়েও ফেরার লড়াই শুরু করেছেন তামিম ইকবাল। দীর্ঘ অধ্যবসায়, কঠোর নিয়মানুবর্তিতা আর অক্লান্ত প্রচেষ্টায় মুটিয়ে যাওয়া শরীরটা বাগে আনিয়েছেন বহু কষ্টে। অফ ফর্মের সঙ্গে জুঝতে থাকা ব্যাট হাতে ঝিমিয়েপড়া মারদাঙ্গা ইমেজটাও ফিরে পেয়েছেন সম্প্রতি। পুরনো সেই ‘কষ্টের জীবনে’ আর ফিরে যেতে চান না তামিম ইকবাল। আঙ্গুলের ইনজুরি নিয়ে তো আর শরীরকে বসিয়ে রাখা যায় না! সেই কারণে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে বাঁ হাতের ইনজুরিতে পড়া এই ওপেনারের। ইংল্যান্ডের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী প্রাথমিকভাবে তিন সপ্তাহের রিহ্যাভ করছেন তিনি। এই সময়ে সন্তোষজনক উন্নতি হলেই শুরু হবে তার ব্যাটিং অনুশীলন। এশিয়া কাপ থেকে চোট নিয়ে দেশে ফেরার পর তামিম উড়ে যান ইংল্যান্ডে। সেখান থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে এসেছেন তিনি। তার পরামর্শ অনুযায়ী তামিমের পুরো পুনর্বাসন প্রক্রিয়া সাজিয়েছেন বিসিবির চিকিৎসক ডা. দেবাশীষ চৌধুরী। শুরুতে মিরপুরে জিমে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান ড্যাশিং এই ওপেনার। হাতে ব্যান্ডেজ নিয়েই চালিয়েছেন হালকা ফিটনেস ট্রেনিং ও হাতের থেরাপি। চিকিৎসকের দেয়া গাইডলাইন অনুসারে চলতে হচ্ছে তাকে। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে তামিম, সাকিবদের ছাড়া বাংলাদেশ কি পূর্ণশক্তির দল হতে পারবে? মাঠের ক্রিকেটের পাশাপাশি নানা সমস্যায় ধুঁকতে থাকা আফ্রিকার দেশ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে কতটা ভালো খেলতে পারবে সেটাই এখন দেখার বিষয়। কারণ একসঙ্গে তামিম ও সাকিবকে ছাড়া খেলেনি বাংলাদেশ। এবার সেটাই করতে হবে লাল সবুজ প্রতিনিধিদের।
mhrashel00@gmail.com
Bookmark and Share প্রিন্ট প্রিভিও | পিছনে 
খেলা
  • [খেলা] ফিরে আসবে হারিয়ে যাওয়া গ্রামীণ খেলা
  • মেয়েদের দেখানো পথে কিশোরদের জয়যাত্রা
  •  মতামত সমূহ
    পিছনে 
     আপনার মতামত লিখুন
    English বাংলা
    নাম:
    ই-মেইল:
    মন্তব্য :

    Please enter the text shown in the image.
    বর্তমান সংথ্যা
    পুরানো সংথ্যা
    Click to see Archive
    Doshdik
     
     
     
    Home | About Us | Advertisement | Feedback | Contact Us | Archive